The age of the groom is full century, the bride is 96! The love story of the groom-to-be is no less than a movie storyপাত্রের বয়স ফুল সেঞ্চুরি, পাত্রী ৯৬! হবু বর-কনের প্রেমকাহিনী সিনেমার গল্পের থেকে কোনো অংশে কম নয়

জীবনের শেষ পর্যায়ে এসে ফের সংসার পাততে চলেছেন নিউইয়র্কের হ্যারোল্ড টেরেন্স। ১০০ বছর বয়সে এসে বিয়ে করতে চলেছেন তিনি। আর পাত্রী? ৯৬ বছর বয়সী জেনি শার্লিন। প্রেম যে কোনো বয়স মানে না তা আমরা শুনেছি বারবার। তারই বাস্তবায়ন করতে চলেছেন এই যুগল।

দীর্ঘদিন বায়ুসেনায় কাজ করেছেন হ্যারোল্ড। মাত্র ২০ বছর বয়সে বায়ুসেনায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেও অংশগ্রহণ করেছিলেন। এরপর চাকরির সূত্রে পাড়ি দেন ইংল্যান্ডে। দীর্ঘদিন বিভিন্ন দেশে ঘুরে কাজ করার পর থিতু হতে চান জীবনে।

তাই ফিরে আসেন আমেরিকায়। সেখানে দীর্ঘদিনের বন্ধু থেলমার সঙ্গে সংসার শুরু করেন। এরপর দুই সন্তানের জন্ম দেন তার স্ত্রী। পরিবারকে ছেড়ে কাজে ফেরার ইচ্ছে ছিল না তার। তবে স্ত্রীর জোর করাতেই ফের কাজে যোগ দেন। দুই ছেলেকে নিয়ে সংসারের দায়িত্ব সামলেছেন থেলমা।

জীবনের বেশিরভাগ সময়টাই পরিবারের থেকে দূরে থেকেছেন তিনি। এরপর সম্পূর্ণ অবসর নিয়ে বাড়ি ফিরে আসেন। তবে বাড়ি আসার কয়েকমাস পরেই তার স্ত্রীর মৃত্যু হয়। তার ছেলেরা কাজের সূত্রে অন্য দেশে রয়েছেন। ফলস্বরূপ জীবনে সম্পূর্ণ একা হয়ে পড়েন তিনি।

তার এই নিঃসঙ্গ জীবনে আলাপ হয় জেনির সাথে। জেনি বিয়ে করেননি। মনের মতোন কাউকে পাননি সংসার পাতার জন্য। তবে ৯৬ বছর বয়সে এসে তার মনে হয় হ্যারোল্ড তার মনের মানুষ। তার জন্যই এতোদিন অপেক্ষা করেছিলেন। তাই তো আর সময় নষ্ট না করে নিজের মনের কথা জানিয়ে দেন।

আরও পড়ুন,
*২০০০ মানুষের চামড়া সংগ্রহ করেছিলেন যিনি
*মুড সুইং হচ্ছে? পেছনে রয়েছে কোন কারন

Note: ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।
এইভাবে তেজপাতা পোড়ালে দুশ্চিন্তা কেটে যাবে 5 Best Night Creams ৪ মাসের শিশু ২৪০ কোটির মালিক