'

‘জীবনের শেষ বসন্ত রাঙিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ’, পরাগের কথায় চমকে উঠল শিমুল! এর পর কী ঘটবে কার কাছে কই মনের কথা’য়

By BB Mar21,2024
'Thank you for painting the last spring of life', Shimul was surprised by Parag's words!'জীবনের শেষ বসন্ত রাঙিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ', পরাগের কথায় চমকে উঠল শিমুল! এর পর কী ঘটবে কার কাছে কই মনের কথা'য়

খুব শীঘ্রই ‘কার কাছে কই মনের কথা’ ধারাবাহিকে দোল স্পেশাল পর্ব দেখানো হবে। সেখানেই জানা যাবে পরাগের জীবনে আর মাত্র কয়েকদিনই বাকি! ফলে এটাই স্পষ্ট যে আগামী দিনের পর্বগুলি বেশ টানটান উত্তেজনাপূর্ণ হতে চলেছে। সম্প্রতি ধারাবাহিকের একটি প্রোমো প্রকাশ্যে এসেছে।

যেখানে দেখা যায় প্রাক্তন স্বামীকে গালে আবীর মাখানোর অনুমতি দেয় শিমুল। এরপরই তার গালে আবীর মাখিয়ে দেয় পরাগ। তবে এই পর্যন্ত সব ঠিকই ছিলো। এরপরেই জানা যায় আসল চমক। পরাগ শিমুলকে বলে তার জীবনের শেষ বসন্তটা এভাবে রাঙিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

যা শোনার পরে রীতিমতো চমকে ওঠে শিমুল। তাকে প্রশ্ন করে, ‘শেষ বসন্ত মানে? তুমি আমার থেকে কী লুকোচ্ছো?’ আসলে কিছুদিন আগেই দেখা গিয়েছিল একটি পথদুর্ঘটনায় শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে পরাগ। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার জীবনে নাকি অল্প দিনই বাকি রয়েছে। যা শুনে তার মা ভেঙে পড়েন।

যদিও আইনতভাবে পরাগ এবং শিমুলের বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছে। তবে সে তার স্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে চলেছে অনবরত। মিথ্যে কথা বলে বন্ডে সই করে সে তার স্বামীর জীবন বাঁচায়। এমনকি পরাগের জন্য শিবরাত্রির ব্রতও পালন করেছে সে। বর্তমানে স্বামীর বাড়িতে থেকেই তার শুশ্রূষা করে চলেছে।

এখানেই শেষ নয় বিপাশাকে নতুন জীবন দেওয়ার জন্য ক্রমাগত লড়াই করে চলেছে সে। অন্যদিকে দেখা গিয়েছে তার সংসার চালানোর জন্য তা চাকরিটা শিমুলকে দেওয়ার প্রস্তাব রাখে পরাগ। এরই মাঝে আবার এই প্রোমো হাজারটা প্রশ্ন তুলে দিয়েছে দর্শকদের মনে। কোনদিকে এগোবে শিমুলের জীবন? তা আগামী পর্বগুলোই বলবে।

Disclaimer: Sangbad Bhavan -এ উল্লেখিত তথ্য বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল / অনলাইনে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে লেখা, শুধুমাত্র তথ্য গ্রহণের জন্য। কোন বিশেষ সিদ্ধান্ত পৌঁছানোর পূর্বে আপনার শুভ চিন্তকের সঙ্গে পরামর্শ করে নেবেন। Note: ভিডিও খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন সংবাদ ভবন YouTube পেজ। ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।

By BB

Related Post

5 Best Night Creams ৪ মাসের শিশু ২৪০ কোটির মালিক