পুত্র সন্তান জন্ম দিল সমলিঙ্গের মহিলা দিম্পতি, দু'জনেই গর্ভে ধারণ ভ্রূণ করেছিলেন, কিন্তু কি ভাবে? | SANGBAD BHAVAN  

পুত্র সন্তান জন্ম দিল সমলিঙ্গের মহিলা দিম্পতি, দু’জনেই গর্ভে ধারণ ভ্রূণ করেছিলেন, কিন্তু কি ভাবে?

সমলিঙ্গের মহিলা দম্পতি পুত্রসন্তানের জন্ম দিলেন। এর আগে অবশ্য পুরুষ দম্পতির ঘরে সন্তান এসেছে। কিন্তু মহিলা দিম্পতির অভিভাবক হওয়ার ঘটনা আমেরিকায় এই প্রথম। আমেরিকার নিউ ইয়র্কের বাসিন্দা বছর তিরিশের এস্তেফেনিয়া বহু দিন যাবত সম্পর্কে রয়েছেন ২৭ বছর বয়সি আজহারার সঙ্গে। তাঁরা পরিপূর্ণ হলেন সন্তান আসার পর এমনটা জানিয়েছেন।

চলতি বছর মার্চ মাস থেকে শুরু হয়েছিল সন্তান জন্ম দেওয়ার প্রক্রিয়া। ওই দম্পতি এ বিষয় নিয়ে বিভিন্ন চিকিৎসকের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। অবশেষে ‘ইনভোসেল’ পদ্ধতিতে তাঁরা সন্তানের জন্ম দেন। সর্ব প্রথমে ডিম্বাণু তৈরি হওয়ার পর তা এস্তেফেনিয়ার গর্ভে নিষিক্ত করা হয়েছিল। এর পর আজহারা ন’মাস ধরে গর্ভে ধারণ করেন।

আরও পড়ুন,
*জল কম পান করলে কি প্রস্রাব করতে গেলে জ্বালা-পোড়া হয়? না কি সমস্যা আরও গুরুতর?
*হঠাৎ কোটিপতি! লটারি ভাগ্য হাতে আছে? না কি নেই

‘ইনভোসেল’ সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষেত্রে এক উদ্ভাবনী পদ্ধতি। ডিম্বাণু এবং শুক্রাণু একটি ক্যাপসুলের ভরে যোনিতে স্থাপন করা হয়। মোট পাঁচ দিন রাখার পরে তা অপসারণ করে নেওয়া হয়। এই দম্পতির ক্ষেত্রেও এনটাই করা হয়েছিল। প্রথম পাঁচ দিন ক্যাপসুল ছিল এস্তেফেনিয়ার শরীরে। এবং তার পর ক্যাপসুল আজহারার জরায়ুতে স্থানান্তর করা হয়েছিল। এভাবে আজহার শরীরে জন্ম নেয় ভ্রূণ। ন’মাস গর্ভ ধারণের পরে সম্প্রতি ফুটফুটে পুত্র সন্তানের জন্ম দিলেন আজহারা। একরত্তি ছেলের নাম রেখেছেন ডেরেক। আপাতত ছেলে এবং মা, দু’জনেই সুস্থ আছে।

এই ঘটনা জানার পর থেকেই বহু সমলিঙ্গের দম্পতি ইনভোসেল পদ্ধতি নিয়ে বেশ কৌতূহল প্রকাশ করেছেন। এই পদ্ধতির খরচও জানতে চেয়েছেন। সমলিঙ্গের মহিলা দম্পতি এস্তেফেনিয়া এব‌ং আজহারার খরচ হয়েছে মোট ৫৪৮৯ ডলার। যা ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাড়ে চার লক্ষ টাকা। এ বিষয়ে চিকিৎসকদের মতামত, এই পদ্ধতির নতুনত্ব এখানেই যে, ভ্রুণ বহন করতে পারেন উভয়েই। এখানেই শেষ নয় যত ক্ষণ প্রয়োজন তত ক্ষণ পর্যন্ত ভাগ করেও নিতে পারেন।

আরও পড়ুন,
*Ultimate Nipple Bra: স্পষ্ট বোঝা যাবে স্তনবৃন্ত! সারা ফেলে দিলেন কার্দাশিয়ান
*Yoga: ৩ আসন, শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি জেল্লাদার করে তোলে ত্বক

Note: প্রতিবেদনে উল্লেখিত তথ্য বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল / অনলাইনে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে লেখা। খবরের সত্যতা যাচাই করেনা Sangbad Bhavan। ভিডিও খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন সংবাদ ভবন YouTube পেজ। ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।