'
'পিএইচডি সব্জিওয়ালা'! উচ্চশিক্ষিত হয়েও বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্রি করেন আলু, পেঁয়াজ, নেপথ্যে কোন কারণ'পিএইচডি সব্জিওয়ালা'! উচ্চশিক্ষিত হয়েও বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্রি করেন আলু, পেঁয়াজ, নেপথ্যে কোন কারণ

এটি দুটি নয় চারটি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি রয়েছে। তার সঙ্গে আবার পিএইচডি। কিন্তু তাঁকে দেখা যায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে সব্জি বিক্রি করতে। তাই বর্তমানে তাঁর পরিচয় ‘পিএইচডি সব্জিওয়ালা’ই।

এক সময় সন্দীপ সিংহ এক জন চুক্তিভিত্তিক অধ্যাপক ছিলেন পটিয়ালায় পঞ্জাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের। অর্থ উপার্জনের জন্য তিনি চাকরি ছেড়ে দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। বর্তমানে তিনি পঞ্জাবে শাকসব্জি বিক্রি করেন। অবশ্য তিনি তাঁর পরিবারকে পাশে পেয়েছেন। ১১ বছর যাবৎ পঞ্জাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে চুক্তিভিত্তিক অধ্যাপক ছিলেন সন্দীপ। তিনি আইন বিষয়ে পিএইচডি করেছেন। এ ছাড়াও তিনি পঞ্জাবি, সাংবাদিকতা এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান-সহ চারটি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন। এখনও তিনি চালিয়ে যাচ্ছেন পড়াশোনা। নিয়মিত প্রস্তুতি নিচ্ছেন পরীক্ষার জন্য।

আরও পড়ুন,
*Viral Video: মেলবোর্নের গ্যালারিতে বান্ধবীকে বিয়ের প্রস্তাব ভারতীয় বাংশোদ্ভূত যুবকের
*ঐশ্বর্যের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা! ফের কি চর্চায় বিবেক

অনেকের মনেই প্রশ্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি খামোখা ছাড়লেন কেন? এই প্রশ্নের জবাব সন্দীপের, চাকরি করার সময় তাঁকে বহু বাধার সম্মুখীন হতে হত। বিশ্ববিদ্যালয়ে আসতে না পারলে অথবা কোনো করণ বসত ছুটি নিলে তাঁর বেতন কেঁটে নেওয়া হতো। নিয়মিত বেতনও পেতেন না। এমনটা সন্দীপের অভিযোগ।

সূত্র মারফত খবর, সন্দীপ জানিয়েছেন, আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিটা ছাড়তে হয় তাঁর কারণ আমি সময়মতো বেতন পেতাম না। আর বারবার বেতন কাটা হতো আমার। সেই চাকরি বজায় রাখা আমার পক্ষে খুবই কঠিন হয়ে পড়েছিল। সে কারণে আমি চাকরি ছেড়ে দিতে বাধ্য হই। তবে অর্থের প্রয়োজন সকলের মতো আমারও রয়েছে । তাই অর্থ উপার্জনের জন্য আমি আমার পেশা বদলে নেই।

সূত্র মারফত আরও খবর, একটি বোর্ড লাগানো আছে সন্দীপের সব্জির ভ্যানে। যেখানে লেখা রয়েছে ‘পিএইচডি সব্জিওয়ালা।’ সন্দীপ অধ্যাপক হিসেবে যতটা আয় করতেন তার থেকে সব্জি বিক্রি করে অনেক বেশি আয় করেন, এমনটা তিনি জানিয়েছেন। আর তো আর এখানে টাকা কাটারও কোনও ভয় নেই। সারাদিন সব্জি বিক্রি করার পর তিনি খুব একটা ক্লান্তও হন না। বরং বাড়িতে গিয়ে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতিও নিতে পারেন। সন্দীপের ইচ্ছা, এক দিন নিজের টাকায় একটি টিউশন সেন্টার খুলবেন তিনি। এর জন্য অর্থ সঞ্চয় করছেন সন্দীপ।

আরও পড়ুন,
*ছক্কা হাঁকানোয় ডাবল সেঞ্চুরি, এবার বিগ ব্যাশ লিগে ইতিহাস গরলেন ক্রিস লিন
*১৩ লাখ টাকা মিলবে ‘মা’ বানাতে পারলে, ব্যর্থ হলেও পাবেন সান্তনা পুরস্কার! ৮ জালিয়াত গ্রেফতার বিহারে

Note: প্রতিবেদনে উল্লেখিত তথ্য বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল / অনলাইনে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে লেখা। খবরের সত্যতা যাচাই করেনা Sangbad Bhavan। ভিডিও খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন সংবাদ ভবন YouTube পেজ। ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।