'
আয়ু কত দিন? বলে দেবে হাত ও ললাটের রেখা, জানতে চান?আয়ু কত দিন? বলে দেবে হাত ও ললাটের রেখা, জানতে চান?

আয়ু কত দিন? বলে দেবে হাত ও ললাটের রেখা

আয়ু কত দিন? আর কত দিন বাঁচবো? কত বয়সে মৃত্যু হবে? এ নিয়ে সকলের মনে নানান প্রশ্ন থাকে। তবে জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুযায়ী হাত ও ললাটের রেখা দেখে এটা জানা সম্ভব আয়ু কত দিন? কোন জাতক আর কতদিন জীবিত থাকবে।

কোষ্ঠী বিচার না করেও জাতক-জাতিকার মৃত্যু সম্পর্কে জানা যায়, অর্থাৎ জানা যায় তাঁর আয়ু কত দিন? আর কত দিন বাঁচবেন? কত বয়সে মৃত্যু হবে?

তবে আয়ু বা মৃত্যু ছাড়াও হস্তরেখা, (Palmistry) দেখে ব্যক্তির স্বাস্থ্য সম্পর্কেও খুঁটিনাটি তথ্য জানা জয়। সুস্থ সবল জীবনযাপন করবেন? না কি,কোনও কঠিন রোগে ভোগতে হবে? হস্তরেখা শাস্ত্র অনুযায়ী, এই সব প্রশ্নের উত্তর মিলবে জাতক-জাতিকার হস্ত রেখা বিচার করে।

আয়ু রেখা কাকে বলে?

হস্তরেখা শাস্ত্র অনুযায়ী, জাতকের আয়ু জানার আয়ু রেখা বিশেষ ভাবে দেখা হয়। বৃদ্ধা আঙুলের নিচে শুক্র পর্বত, এই শুক্র পর্বত বেস্টন করে আছে একটি অর্ধ চন্দ্রাকৃতি রেখা। হস্তরেখা শাস্ত্র অনুযায়ী এই রেখাকে আয়ু রেখা বা জীবন রেখা বলা হয়।ব্যক্তি বিশেষ এই রেখা ভিন্ন হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু, কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমও হতে পারে।

আয়ু রেখা বিচার

ক) শুভ আয়ু রেখা

এই আয়ু রেখাটি যদি স্পষ্ট থাকে এবং রেখাটি হাতের বৃদ্ধা অঙ্গুল ও তর্জনী আঙ্গুলের মাঝখান শুরু হয়ে হাতের কব্জি অর্থৎ মনিবন্ধন পর্যন্ত যায় তার পাশাপাশি রেখাটির মাঝে কোনো স্থানে যদি ভাঙা না থাকে তাহলে অত্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। মন ধরনের শুভ আয়ু রেখাটি যদি অন্য কোনও রেখা দ্বারা করতন না হয় তাহলে সেই জাতক-জাতিকা ৭০ বছর জীবিত থাকেন। তিনি সুস্থ-সবল জীবনযাপন করবেন। এমন শুভ আয়ুরেখা বিশিষ্ট জাতক কোনও কঠিন রোগে আক্রান্ত হন না।

খ) অশুভ আয়ু রেখা

কিন্তু আয়ু রেখাটি যদি মনিবন্ধন পর্যন্ত না যায়, রেখাটি মাঝের কোনো স্থানে ভাঙা থাকে অথবা রেখাটি কোনো অশুভ চিহ্ন যুক্ত থাকে তাহলে এমন ধরনের আয়ু রেখাকে শুভ মনে করা হয় না।

যে জাতকের  হাতে এমন আয়ু রেখা থাকে, তাঁরা সাধারণত যে কোনও কঠিন রোগ বা দুর্ঘটনার শিকার হন।

হাতের রেখা দেখে আয়ু নির্নয়

হাতের রেখা দেখে জাতকের আয়ু নির্ধারিত করা যেতে পারে। হস্তরেখা শাস্ত্র অনুযায়ী, প্রতিটি রেখার আয়ু ২৫ বছর করে ধরা হয়। কোনও ব্যক্তির হাতে যদি ২টি রেখা থাকে তবে, তাহলে ওই ব্যক্তি ৪৫ থেকে ৫০ বছর জীবিত থাকতে পারে। ব্যক্তির বয়স জানার পদ্ধতি সম্পর্কে গরুড় পুরানেও উল্লেখ আছে। পুরাণ অনুযায়ী, কোনও জাতকের একটি আঙুল দিয়ে নিজের শরীরের মাপ করলে তাঁর শরীর ১০৮ আঙুল সমান লম্বা হয়। এমনটা হলে জাতক ১০০ বছরের আয়ু নিয়ে জন্মগ্রহণ করে বোঝায়। কিন্তু ১০০ আঙুল সমান উচ্চতা থাকলে ওই ব্যক্তির আয়ু হয় ৮০ থেকে ৯০ বছর বোঝায়। তবে ব্যতিক্রম হতে পারে।

ললাট রেখা দেখে আয়ু নির্ণয়

শাস্ত্র অনুযায়ী কোন জাতকের ললাটে একাধিক রেখা থাকলে। রেখা গুলি গভীর হলে এবং রেখা গুলি যদি ভাঙা না-থাকে, তা হলে সেই জাতক দীর্ঘায়ু লাভ করে। আবার ললাটে যদি গভীর রেখা থাকে, তাহলে সেই জাতক একজন দার্শনিক হন। এঁরা অনেক চিন্তেভাবনা করে পদক্ষেপ ফেলেন।

Note: প্রতিবেদনে উল্লেখিত তথ্য বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল / অনলাইনে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে লেখা। খবরের সত্যতা যাচাই করেনা Sangbad Bhavan। ভিডিও খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন সংবাদ ভবন YouTube পেজ। ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।