নিজের স্বপ্নপূরণে স্বামীর অতিরিক্ত চাপ দেওয়া মানসিক নির্যাতন: দিল্লী উচ্চ আদালত | SANGBAD BHAVAN  

নিজের স্বপ্নপূরণে স্বামীর অতিরিক্ত চাপ দেওয়া মানসিক নির্যাতন: দিল্লী উচ্চ আদালত

স্বামীর আর্থিক সামর্থ্যের বাইরে গিয়ে তার উপর নিজের স্বপ্নপূরণের দায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া অথবা তাকে তার আর্থিক সামর্থ্যের কথা মনে করিয়ে দেওয়া একপ্রকার মানসিক নির্যাতন! ফলস্বরূপ বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ বহাল রাখলো দিল্লী উচ্চ আদালত।

সম্প্রতি স্ত্রী’র অহেতুক দাবিতে অতিষ্ঠ হয়ে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা দায়ের করেছিলেন এক যুবক। নিম্ন আদালতের তরফ থেকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। যদিও সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা করেন ওই যুবকের স্ত্রী।

আরও পড়ুন,
*রামমন্দির উদ্বোধনে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ সম্প্রচার! সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার অভিযোগ বিবিসি’র বিরুদ্ধে
*তাজমহলে শাহজাহানের মৃত্যুদিন উদযাপন স্থগিত! দাবিতে আদালতের দারস্থ হল অখিল ভারত হিন্দু মহাসভা

তবে সেখানেও বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশই বহাল রইলো। স্বামীর প্রতি নিষ্ঠুর আচরণের অভিযোগে বিচ্ছেদে সায় দেয় বিচারপতি সুরেশকুমার কাইত ও বিচারপতি নীনা বনশল কৃষ্ণার নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ। তাদের মতে স্বামীর কাছে মূল্যবান জিনিসের আবদার করা সংসারে অশান্তি আনে।

এছাড়া বারবার তাকে তারা আর্থিক ক্ষমতার কথা মনে করিয়ে দেওয়া এক প্রকার মানসিক চাপ। তাইতো নিম্ন আদালতের নির্দেশ বহাল রেখে উচ্চ আদালতের তরফ থেকেও বিচ্ছেদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আদালতের তরফ থেকে বলা হয় চাহিদা এবং প্রয়োজনের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা উচিত।

কোনো স্ত্রী যদি বারবার তার স্বামীকে আর্থিক সামর্থ্য নিয়ে কথা শোনান তাহলে সংসারে অশান্তি তৈরি হয়, যা কখনোই কাম্য নয়। শুধু তাই নয় আদালতের তরফ থেকে বলা হয়েছে ওই মহিলা অপরিণত মানসিকতার। তার মানিয়ে নেওয়ার কোনো ইচ্ছে নেই। তাইতো যুবকের পক্ষেই রায় দিয়েছে আদালত।

আরও পড়ুন,
*Digha: যুগান্তকারী পদক্ষেপ! কয়েকদিনের অপেক্ষা মাত্র দিঘার কাছেই সৃষ্টি হবে সোনালী এক ইতিহাস
*Ankita Bhattacharyya: ‘ভারতীয়দের রুটিরুজি চলে বাংলাদেশকে মেরে!’ সঙ্গীতশিল্পী অঙ্কিতা ভট্টাচার্যর এক মন্তব্য ঘিরে উত্তাল বাংলাদেশী নেটিজেন!

Note: প্রতিবেদনে উল্লেখিত তথ্য বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল / অনলাইনে পাওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে লেখা। খবরের সত্যতা যাচাই করেনা Sangbad Bhavan। ভিডিও খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন সংবাদ ভবন YouTube পেজ। ফলো করুন Google News, Instragram, Facebook পেজ।